ঢাকা,  মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ,

রান্নাঘর মাছি ও পোকামুক্ত রাখার ১০ টিপস

রান্নাঘর মাছি ও পোকামুক্ত রাখার ১০ টিপস

ফাইল ছবি

রান্নাঘরে পোকা, পিঁপড়া ও মাছির আনাগোনা দূর হচ্ছে না কোনোভাবেই? পরিষ্কার এবং স্বাস্থ্যকর রান্নাঘর বজায় রাখা স্বাস্থ্যকর খাবার রান্না করার মতোই গুরুত্বপূর্ণ। মাছি ও পোকামাকড় প্যাথোজেন ত্যাগ করে যা রান্নাঘরের খাবারের সংস্পর্শে এসে তাদের দূষিত করে। কিন্তু ব্যস্ত জীবনে প্রতিদিনের কাজ যেমন রান্নাঘর পরিষ্কার করা, পোকামাকড় ও মাছিদের দূরে রাখা বেশ কঠিন। শুধু পানি বা সাবান দিয়ে পরিষ্কার করলে পোকামাকড় এবং মাছি দূর হয় না। জেনে নিন এগুলো দূর করার কিছু ঘরোয়া উপায়। এসব টিপস মেনে চলার পাশাপাশি নিয়মিত রান্নাঘর পরিষ্কার করুন। বায়ুরোধী পাত্রে খাবার সঠিকভাবে সংরক্ষণ করুন।


প্যান্ট্রি বা রান্নাঘরের ক্যাবিনেটে তেজপাতা রাখুন। তেজপাতার তীব্র ঘ্রাণ তেলাপোকা এবং পোকামাকড়কে দূর করবে। 
সাইট্রাস খোসা যেমন লেবু, কমলা বা আঙুরের খোসায় প্রাকৃতিক তেল থাকে যা পোকামাকড় ও মাছির জন্য অস্বস্তিকর। সাইট্রাসের খোসাকে জানালা এবং অন্যান্য প্রবেশপথে ঘষে নিন। মাছি ও পোকা আসবে না।
পিঁপড়ার সমস্যা থাকলে তাদের প্রবেশের জায়গার কাছে শসার টুকরো রাখুন। পিঁপড়ারা শসার ঘ্রাণ অপছন্দ করে।
একটি স্প্রে বোতলে সমপরিমাণ পানি এবং সাদা ভিনেগার মিশিয়ে নিন। রান্নাঘর পরিষ্কার করতে ব্যবহার করুন এই দ্রবন। পিঁপড়া ও পোকা আসবে না।
যেসব জায়গায় পিঁপড়া দেখেছেন, সেসব জায়গায় দারুচিনি ছিটিয়ে দিন। প্রাকৃতিক পিঁপড়া প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে এটি। 
বাড়ির আশেপাশে পুদিনা গাছ রাখুন। পুদিনার একটি শক্তিশালী ঘ্রাণ আছে যা পোকামাকড় তাড়ায়।
ব্যবহৃত কফি গ্রাউন্ড প্রাকৃতিক পিঁপড়া প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করতে পারে। পিঁপড়ার আনাগোনা বেশি এমন স্থানে ছিটিয়ে দিন কফির গুঁড়া। 
বোরাক্স এবং চিনি মিশিয়ে নিন সমান অংশে এবং এটি এমন জায়গায় রাখুন যেখানে পিঁপড়ার আনাগোনা আছে। চিনি তাদের আকর্ষণ করে এবং বোরাক্স কাজ করে বিষ হিসেবে। 
পেপারমিন্ট, ইউক্যালিপটাস এবং চা গাছের তেলের মতো এসেনশিয়াল তেলের পোকামাকড়-প্রতিরোধক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। একটি স্প্রে বোতলে এসব তেলের কয়েক ফোঁটা নিয়ে পানির সঙ্গে মিশিয়ে মুছে নিন রান্নাঘর। 
নিমের কয়েকটি ডাল কেটে রান্নাঘরের জানালায় ঝুলিয়ে দিন। মাছির আনাগোনা কমে যাবে।